অান্তজাতীক ক্রিকেট

কারোনা ভাইরাস রোগীদের জন্য কলকাতার ইডেন গার্ডেন ক্রিকেট স্টুডিয়ামকে বানানো হচ্ছে অস্থায়ী হাসপাতাল

পুরো পৃথিবীজুড়ে এখন হয়ে গেছে মৃত্যুকূপ। প্রতিদিনই মারা যাচ্ছে পুরো পৃথিবী জুড়ে প্রায় হাজার হাজার মানুষ। করোনার ব্যাপকতা যে হারে বাড়ছে সেক্ষেত্রে ক’দিনবাদে হাসপাতালের জায়গা হবে সংকুলান, রোগি সামাল দিতে খেঁই হারিয়ে ফেলবেন ডাক্তাররা।

সেই শঙ্কায়ই কলকাতার ইডেন গার্ডেন্সকে হাসপাতাল হিসেবে ব্যবহার করার পরামর্শ দিলেন বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। বললেন, সরকার চাইলে ইডেনই হতে পারে কিছুকালের জন্য করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসালয়।

এবারের আইপিএল কি সত্যিই হবে? হলে, কবে হবে? এর কোনও কিছুর উত্তর নেই সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের কাছে। বোর্ড প্রেসিডেন্টের সাফ কথা, ‘এই মুহূর্তে আমার এ নিয়ে কিছুই বলা নেই।’ সেই সঙ্গে সৌরভ এটাও বলে দিলেন, ‘সরকার যদি চায়, ইডেনের ইন্ডোর এবং ডর্মিটরিকে অস্থায়ী চিকিৎসাকেন্দ্র করে তোলা যেতে পারে। এ ব্যাপারে আমরা প্রস্তুত।’

বিসিসিআই অন্যতম ধনী সংস্থা। দেশের এই বিপর্যয়ে বোর্ড কি কোনও অর্থ সাহায্য করবে? সৌরভের উত্তর, ‘এটা নিয়ে আমি সচিব জয় শাহ-এর সঙ্গে কথা বলব। তারপরেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’

তবে নিজের শহর কলকাতার জন্য সৌরভ যে তৈরি, সেটা তিনি বুঝিয়ে দিয়েছেন। বলে দেন, ‘যদি সরকার আমাদের সঙ্গে কথা বলে তা হলে আমরা ইডেনের সমস্ত রকম সুযোগ সুবিধা উজাড় করে দেব। এ নিয়ে কোনও সমস্যা নেই।’

হাওড়ার ডুমুরজলা ইন্ডোর স্টেডিয়ামকে ইতিমধ্যেই হাসপাতাল বানিয়েছে সরকার। প্রয়োজনে আরও স্টেডিয়াম নেওয়া হবে। সেই জন্যই আগাম ইডেন নিয়ে বার্তা দিয়ে রাখলেন সৌরভ।

রাতে একটি ভিডিও বার্তাও দেন সৌরভ। সেখানে আবারও সবাইকে নিময় মেনে চলার কথা বলেছেন। তাঁর কথায়, ‘কঠিন পরীক্ষার মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি আমরা। তবে এই লড়াইয়ে আমরা জিতব। ঘরে থাকাই এখন একমাত্র পন্থা। সেটাই করুন। সরকারের সঙ্গে সহযোগিতা করুন।’

আইপিএলের ভবিষ্যৎ নিয়েও মুখ খুলেছেন বোর্ড প্রেসিডেন্ট সৌরভ। করোনাভাইরাসের আতঙ্কে গোটা বিশ্ব জুড়েই খেলাধুলো এখন প্রশ্নচিহ্নের সামনে। সব টুর্নামেন্টই স্থগিত করে দেওয়া হয়েছে। আইপিএলের মতো হাইপ্রোফাইল টুর্নামেন্ট স্থগিত করে দেওয়া হয়েছে ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত।

কিন্তু এখন যা অবস্থা, ১৫ এপ্রিলের পরেই যে সব কিছু ঠিক হয়ে যাবে, সেই গ্যারান্টিও কেউ দিতে পারছেন না। মঙ্গলবার আইপিএলের ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিকদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স করার কথা ছিল বোর্ডের। সেটাও বাতিল করে দেওয়া হয়েছে। ফ্র্যাঞ্চাইজি মালিকরাও বলেছেন, আগে দেশ। তারপর অন্য কথা।

সৌরভ বলেন, ‘যে দিন আইপিএল স্থগিত করা হয়েছিল, সে দিনও আমরা যে জায়গায় দাঁড়িয়ে ছিলাম, আজও তাই। দশ দিনে কোন কিছুই বদলায়নি। তাই এ নিয়ে আমি এখন কিছুই বলতে পারব না।’