বাংলাদেশ ক্রিকেট

বিশ্বকাপের প্রস্তুতি ম্যাচে শেষ ২ বলে ২ উইকেট নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ টাই করল বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব ১৯ ক্রিকেট দল।

বিশ্বকাপের আগে দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব ১৯ ক্রিকেট দল। প্রথমটি অস্ট্রেলিয়া এবং দ্বিতীয়টি নিউজিল্যান্ড অনূর্ধ্ব ১৯ ক্রিকেট দলের সাথে খেলবে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব ১৯ ক্রিকেট দল। প্রথম ম্যাচে আজ অস্ট্রেলিয়া অনূর্ধ্ব ১৯ দলের মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব ১৯ ক্রিকেট দল। যুব বিশ্বকাপের প্রস্তুতি ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে টাই করেছে বাংলাদেশ।

ম্যাচের শেষ ওভারে জয়ের জন্য অস্ট্রেলিয়ার প্রয়োজন ছিল ১১ রান। আর বাংলাদেশের ২ উইকেট। শরিফুল ইসলামের করা প্রথম তিন বলে তানভীর সাঙ্গা তোলেন ৯ রান। চতুর্থ বল ডট দেন বাঁহাতি পেসার শরিফুল। পঞ্চম বলে ফেরান টড মারফিকে।

শেষ বলে সমীকরণ দাঁড়ায়, অজিদের জিততে প্রয়োজন ২ রান, আর বাংলাদেশের ১ উইকেট। ম্যাথু উইলিয়ানস ব্যাটে বল ছোঁয়ালেও প্রথম রানের পর দ্বিতীয় রান পূর্ণ করতে পারেননি দুই ব্যাটসম্যান। শাহাদাত হোসেন রান আউট করলে রোমাঞ্চকর টাই নিয়ে মাঠ ছাড়ে দুই দল।

দক্ষিণ আফ্রিকার প্রিটোরিয়াতে বৃষ্টিবিঘ্নিত ম্যাচে টসে জিতে আগে ব্যাট করতে নামে বাংলাদেশি যুবারা। বৃষ্টির কারণে ৭ ওভার কমে যায় প্রতি ইনিংস থেকে। নির্ধারিত ৪৩ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ২৫০ রান তোলে বাংলাদেশি যুবারা। দুই ওপেনার তানজিদ হোসেন ও পারভেজ ইমন ৭০ রানের জুটি গড়েন।

তানজিদ ফেরেন ৩২ রানে। পারভেজ ৫২ রান করে রিটায়ার্ড করেন। এরপরে তৌহিদ হৃদয় ও শামীম হোসেন অর্ধশতকের দেখা পান। শামীম সর্বোচ্চ ৫৯ করে অপরাজিত থাকেন। আর তৌহিদ করেন ৫৩ রান। অজিদের পক্ষে টড মারফি নেন সর্বোচ্চ ২ উইকেট।

জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে ভালো শুরু করে অস্ট্রেলিয়া। ৬৬ রানে প্রথম ও ১০৩ রানে দ্বিতীয় উইকেট হারায় দলটি। এরপরে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে অজিরা। এক পর্যায়ে ২৩২ রানে ৮ উইকেট হারায় অজি শিবির। তখন ১৫ বলে প্রয়োজন ছিল ১৯ রানের। সাঙ্গার ১২ বলে ২৩ রানে লড়ছিলো অজিরা।

কিন্তু শেষ পর্যন্ত টাই নিয়ে মাঠ ছাড়ে দুই দল। অজিদের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪৬ রান করেন ওপেনার স্যাম প্যানিং। আর ৪৪ করেন মিডল অর্ডারে নামা কোরি কেলি। বাংলাদেশের পক্ষে শরিফুল ৩৯ রানে নেন ৪ উইকেট। আর হাসান মুরাদ ২৭ রানে নেন ২ উইকেট।